Upension GOV BD

Bangladesh National Pension Authority or upension GOV BD is the first universal pension system of Bangladesh. The main objective of this system is to provide social security in old age to all the people of Bangladesh. If you are looking for proper instructions about Upension gov bd login/ registration, Address, Universal Pension Scheme then this article is for you.

The current government has introduced universal pension system to bring the adult population of the country under pension. Any person above 18 years of age except employees working in Government/Semi-Govt/Autonomous/Government Institutions can avail pension benefits by making monthly, quarterly or annual contributions.

Universal Pension Scheme Details

  • Progoti

Private company employees are eligible for this program. Participation in a private organization is open to any staff member or owner of that organization.

  • Surokkha

This program is open to those who work in the unorganized sector, including farmers, rickshaw pullers, laborers, blacksmiths, potters, fishermen, and weavers.

  • Somota

This program is open to low-income individuals who make less than Tk 60,000 annually and are below the poverty line. Who qualifies as poor will depend on the income threshold that the Bangladesh Bureau of Statistics publishes.

  • Probash

Participation in this scheme is open to any citizen of Bangladesh who works or resides overseas as long as they deposit the required amount in foreign currency.

Upension GOV BD Login/Registration

To apply for Universal Pension visit Universal Pension website www.upension.gov.bd and register with NID, Mobile Number and Email Address. Besides, before applying, you must collect all the necessary information for the pension application.

Upension GOV BD Login

Registration Requirements

Date of birth, email address, mobile number, national identity card number, bank account number, bank branch, routing number, nominee’s national identity card, passport or birth certificate number, and nominee’s mobile number and own annual income should be known.

Registration Process

  • To apply universal pension online first visit the website www.upension.gov.bd from mobile or computer.
  • Click on the Pensioner Registration button from the top right side.
  • Now, you will see a confirmation, if these are correct click on I agree button. Choose the pension scheme that is right for you.
  • Then enter your NID number, date of birth, mobile number and a valid email address.
  • Then enter the captcha code exactly in the box below and click on the next page button. Go to the next page with the 6 digit OTP code sent to your mobile.
  • Here all your personal information will be shown. NID Number, Photo, Bengali and English Name, Father’s Name, Mother’s Name, Current and Permanent Address will come automatically as per National Identity Card.
  • Again you have to give your occupation and annual income information. Besides, if the current address is not correct, you can change it.
  • In the scheme information section you have to select the amount of monthly contribution you want to deposit.
  • In the bank information section, the pension applicant’s bank account name, account number, account type, routing number, bank name and bank branch name should be written.
  • You have to add one or more nominees in the pension application. Click on Add Nominee button to add nominee for Public Pension Scheme with Nominee’s NID Number, Birth Registration Number or Passport Number and Date of Birth.
  • In this step all the personal information, scheme information, bank information and nominee information you have filled will be shown.
  • Check all the information carefully, if it is wrong go to the previous page and correct the information.
  • If all the above information is correct, I confirm by ticking here and click on complete application button to submit online application.
  • Now you have to pay the first installment online. Click on green button to make payment.
  • After payment click on create user button from payment verification page to create pensioner user id.
  • A Pensioner ID will be automatically generated for you. Here you have to create a pensioner account with a 6 digit password of your choice.

Upension GOV BD Registration

Note: It is not possible to go back without completing all the pages in the entire registration process. If you go back, you have to start all the process again. That means login with NID, date of birth, mobile number, captcha and OTP. However, in that case the old data will be saved automatically; No need to write again.

Login Process

Use the 13-digit user, password, and captcha on the login page to log in as a pensioner. After that, the personal dashboard will appear. You can get comprehensive information about your pension right here. The issue date, maturity date, next payment date, outstanding balance, and total amount deposited for your scheme are all listed here.

Upension GOV BD Login

Universal Pension Scheme

Any Bangladeshi citizen working or staying abroad can participate in this scheme by paying the prescribed rate of contribution on condition of payment in foreign currency according to his intention. After returning home from abroad, one can change the scheme if necessary by paying the equivalent amount in local currency. On completion of pension scheme pensioner will get pension in local currency.

Also, expatriate Bangladeshi citizens can apply for “Suraksha” scheme for one or more members of their family (i.e. husband, wife, father, mother, brother, sister) aged 18 or above and pay contribution in foreign currency.

In this case, he will register the pensioner for whom he will manage the account by giving his NID, bank account number, and nominee information.

Universal Pension Scheme

FAQs about Upension GOV BD

প্রশ্ন: পেনশন স্কিমে মুনাফাসহ বছর শেষে কত টাকা জমা হলো চাঁদাদাতা কিভাবে জানতে পারবে?
উত্তর: চাঁদাদাতা তার পেনশন আইডি দিয়ে Universal Pension সিস্টেমে প্রবেশ করে সহজেই বছর শেষে মুনাফাসহ জমাকৃত টাকার পরিমাণ সম্পর্কিত তথ্য জানতে পারবেন।

প্রশ্ন: চাকরি পরিবর্তন করলে নতুন পেনশন নম্বর গ্রহন করতে হবে কিনা?
উত্তর: চাকরি পরিবর্তন করলে নতুন পেনশন নম্বর গ্রহণ করতে হবে না। শুধু জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করতে হবে।

প্রশ্ন: চাঁদাদাতার বয়স ৬০ হওয়ার পর তিনি কিভাবে পেনশন পাবেন?
চাঁদা দাতার বয়স ৬০ বছর হওয়ার পর তার ব্যাংক হিসাবে অথবা মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিসের মাধ্যমে মাসিক পেনশন প্রদান করা হবে।

প্রশ্ন: কেবল অনলাইন রেজিস্ট্রেশন করলেই পেনশন স্কিমে অংশগ্র্হন করা যাবে নাকি হার্ডকপি জমা দিতে হবে?
উত্তর: হার্ড কপি জমা দেওয়ার প্রয়োজন হবে না। শুধু অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করে মাসিক টাকা জমা দিলেই হবে।

প্রশ্ন: গৃহিনীগন কোন স্কিমে অংশ নিতে পারবেন?
উত্তর: গৃহিনীগণ স্বকর্মে নিয়োজিতদের জন্য প্রযোজ্য সুরক্ষা স্কিমে অংশ নিতে পারবেন।

প্রশ্ন: প্রবাস স্কিমে পাসপোর্ট দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করার পর কতদিনের মধ্যে এনআইডি জমা দিতে হবে?
উত্তর: এনআইডি তৈরীতে যৌক্তিকভাবে যে সময়ের প্রয়োজন হবে সেই সময়কালের মধ্যেই এনআইডি জমা দিতে হবে।

প্রশ্ন: জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষের যাবতীয় ব্যয় কি স্কিমে অংশগ্রহনকারীদের জমাকৃত টাকা থেকে মেটানো হবে?
উত্তর: না, জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষের যাবতীয় ব্যয় সরকার বহন করবে।

প্রশ্ন: কোন ব্যক্তির কাছে মাসিক চাঁদার টাকা জমা দেয়া যাবে কিনা?
উত্তর: না, কোন ব্যক্তির কাছে চাঁদার টাকা নগদ জমা দেয়া যাবে না। ব্যাংক,ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ড এবং মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিসের মাধ্যমে চাঁদার টাকা জমা দেয়া যাবে।

প্রশ্ন: সরকারি এবং স্বায়ত্ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীগন সর্বজনীন পেনশন স্কিমে অংশ নিতে পারবেন কিনা?
উত্তর: সরকারি গেজেট প্রজ্ঞাপন জারির পূর্বে সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীগণ সরকারি পেনশন স্কিমে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না।

প্রশ্ন: চাঁদাদাতা এবং মনোনীত নমিনী বা নমিনীগন মেয়াদপূর্তির আগে মারা গেলে জমাকৃত টাকা কে পাবেন?
উত্তর: সংশ্লিষ্ট স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান প্রদত্ত উত্তরাধিকার সনদের ভিত্তিতে উত্তরাধিকারী নির্ধারণ করে জমাকৃত টাকা মুনাফাসহ তাকে/তাদেরকে প্রদান করা হবে।

প্রশ্ন: প্রবাস স্কিমে যোগদান করে বৈদেশিক মুদ্রায় প্রেরিত চাঁদার উপর সরকার ঘোষিত প্রণোদনা পাওয়া যাবে কিনা?
উত্তর: প্রবাস স্কিমে যোগদান করে বৈদেশিক মুদ্রায় প্রেরিত চাঁদার উপর সরকার ঘোষিত হারে প্রণোদনা পাওয়া যাবে। তবে, চাঁদা দাতাকে চাঁদার সম্পূর্ণ অংশ প্রেরণ করতে হবে। প্রণোদনার অর্থ অতিরিক্ত হিসেবে তার একাউন্টে জমা হবে।

প্রশ্ন: পেনশনের অর্থ মুদ্রাস্ফীতির কারণে পরবর্তীতে বৃদ্ধি করা হবে কিনা?
উত্তর: মুদ্রাস্ফীতিকে বিবেচনায় নিয়েই মাসিক পেনশনের পরিমাণ নির্ধারণ করা হয়েছে।

প্রশ্ন: পেনশন স্কিম পরিচালনার যে কোনো পর্যায়ে কেউ যদি চাঁদা দিতে অপারগ হয় তাহলে জমাকৃত সম্পূর্ণ অর্থ লভ্যাংশসহ ফেরত পাওয়া যাবে কি না?
উত্তর: পেনশন স্কিম ১০ বছরের কম সময় পরিচালনার ক্ষেত্রে মুনাফাসহ জমাকৃত অর্থ এবং ১০ বছরের বেশি সময় পরিচালনার ক্ষেত্রে মাসিক পেনশন পাওয়া যাবে। উভয় ক্ষেত্রেই পেনশনারের বয়স ৬০ বছর পূর্ণ হওয়ার পর এ সুবিধা পাওয়া যাবে।

প্রশ্ন: পেনশন স্কিম পূর্ণ মেয়াদে পরিচালনার পর পেনশনের পরিবর্তে সম্পূর্ণ অর্থ একসাথে উত্তোলন করা যাবে কি না?
উত্তর: না, সম্পূর্ণ অর্থ একসাথে উত্তোলন করা যাবে না। মাসিক পেনশন পাওয়া যাবে।

প্রশ্ন: সর্বজনীন পেনশন স্কিমে লোন ব্যতিত এককালীন আংশিক অর্থ পাওয়ার সুযোগ আছে কি না?
উত্তর: না, লোন ব্যতীত এককালীন অর্থ উত্তোলনের সুযোগ নেই।

প্রশ্ন: অনলাইনে ভিসা কার্ড বা মোবাইল ফাইনান্সিয়াল সার্ভিসে (MFS) চাঁদা প্রদানের ক্ষেত্রে সার্ভিস চার্জ বাধ্যতামূলক কি না?
উত্তর: সার্ভিস চার্জ সেবা প্রদানকারী সংস্থাসমূহের (কার্ড/MFS) প্রদত্ত সেবার বিপরীতে চার্জ করে থাকে, যা উক্ত সংস্থাসমূহ প্রাপ্য হয়। এ অর্থ পেনশন তহবিলে জমা হয় না। ফলে, সার্ভিস চার্জ প্রদান করা বাধ্যতামূলক।

প্রশ্ন: মানুষ কেন ব্যাংকে টাকা না রেখে পেনশন স্কিমে রাখবে?
উত্তর: ব্যাংকে টাকা রাখলে আজীবন পেনশন প্রাপ্তির সুযোগ নেই। সর্বজনীন পেনশন স্কিমে অংশ নিলে চাঁদাদাতা আজীবন মাসিক পেনশন প্রাপ্ত হবেন।

প্রশ্ন: নির্দিষ্ট সময় পর সহজে কিভাবে পেনশন পাওয়া যাবে?
উত্তর: চাঁদাদাতার বয়স ৬০ বছর হলে জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষ চাঁদাদাতার ব্যাংক একাউন্টে প্রতি মাসে স্বয়ংক্রিয়ভাবে (ইএফটি) প্রাপ্য টাকা পাঠিয়ে দেয়া হবে।

প্রশ্ন: পেনশনারদের জমাকৃত টাকা কোথায় কিভাবে থাকবে? এই টাকা কি সরকার কোথাও ইনভেষ্ট করবে? ইনভেষ্ট করলে এর লাভ-ক্ষতি কি আমাকে এফেক্ট করবে?
উত্তর: চাঁদা দাতাদের জমাকৃত টাকা জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষ তহবিলে জমা হবে। জমাকৃত টাকা বিনিয়োগ বিধিমালা অনুযায়ী নিরাপদ বিনিয়োগের উদ্যোগ নেয়া হবে।

প্রশ্ন: পেনশন ফান্ডে সরকার কি কোন কন্ট্রিবিউট করবে?
উত্তর: চারটি স্কিমের মধ্যে কেবল “সমতা” স্কিমে চাঁদাদাতার প্রদত্ত চাঁদাসহ সমপরিমাণ টাকা সরকার প্রদান করবে।

প্রশ্ন: নমিনি কতদিন এবং কিভাবে পেনশন পাবে?
উত্তর: পেনশন ভোগরত অবস্থায় চাঁদা দাতার মৃত্যু হলে পেনশনারের বয়স ৭৫ বছর হওয়া পর্যন্ত তাঁর নমিনি/নমিনিগণ পেনশনের টাকা পাবেন।

প্রশ্ন: পেনশন স্কিমের জমাকৃত টাকা কি নগদায়ন (Premature Encashment ) করা যাবে?
উত্তর: না। নগদায়ন বা Premature Encashment করা যাবে না। চাঁদাদাতা কেবল তাঁর জমাকৃত টাকার ৫০% কর্তৃপক্ষের অনুমোদনক্রমে ঋণ হিসেবে নিতে পারবেন এবং ঋণ সর্বোচ্চ ২৪ কিস্তিতে পরিশোধ করতে হবে।

প্রশ্ন: প্রবাস স্কিম নির্বাচন করে কি দেশীয় মুদ্রায় পেমেন্ট করা যাবে?
উত্তর: না। প্রবাস থেকে ডেবিট ও ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে বৈদেশিক মুদ্রায় বৈধ চ্যানেলে চাঁদা প্রদান করতে হবে।

প্রশ্ন: কয়েক কিস্তি টাকা দেওয়ার পর বয়স ৬০ বছর পুর্তির পূর্বে স্কিম বাতিল করে জমাকৃত টাকা ফেরত পাওয়া যাবে কিনা?
উত্তর: না। বয়স ৬০ বছর পূর্তির পূর্বে পেনশন স্কিম বাতিল করে টাকা ফেরত পাওয়া যাবে না।

প্রশ্ন: MPO (Monthly Pay Order) ভুক্ত শিক্ষক/কর্মচারীরা কি জাতীয় পেনশন স্কিমে যুক্ত হতে পারবে?
উত্তর: হ্যাঁ, যুক্ত হতে পারবে।

প্রশ্ন: পেনশন স্কিমে মুনাফাসহ বছর শেষে কত টাকা জমা হলো চাঁদাদাতা কি ভাবে জানতে পারবে?
উত্তর: চাঁদাদাতা তার পেনশন আইডি দিয়ে Universal Pension সিস্টেমে প্রবেশ করে সহজেই বছর শেষে মুনাফাসহ জমাকৃত টাকার পরিমাণ সম্পর্কিত তথ্য জানতে পারবেন।

প্রশ্ন: নির্ধারিত তারিখের মধ্যে চাঁদা জমা করতে ব্যর্থ হলে কি হবে?
উত্তর: নির্ধারিত তারিখের মধ্যে চাঁদা জমা করতে ব্যর্থ হলে পরবর্তী ১ মাস পর্যন্ত জরিমানা ছাড়া চাঁদা প্রদান করা যাবে। ১ মাস অতিবাহিত হলে পরবর্তী প্রতিদিনের জন্য ১% হারে বিলম্ব ফি জমা প্রদান সাপেক্ষে হিসাবটি সচল রাখা যাবে। কোনো চাঁদাদাতা পরপর ৩ কিস্তি চাঁদা জমাদানে ব্যর্থ হলে পেনশন হিসাবটি স্থগিত হবে এবং সমুদয় বকেয়া কিস্তির বিলম্ব ফিসহ জমা না করা পর্যন্ত হিসাবটি সচল হবে না।

প্রশ্ন: চাঁদার টাকা অগ্রিম জমা প্রদান করা যাবে কিনা?
উত্তর: চাঁদাদাতাগণ মাসের নাম উল্লেখপূর্বক যে কোনো পরিমাণ চাঁদার টাকা অগ্রিম হিসাবে জমা করতে পারবেন। চাঁদাদাতা চাইলে মাসিক, ত্রৈমাসিক বা বার্ষিক ভিত্তিতে চাঁদা পরিশোধ করতে পারবেন।

প্রশ্ন: চাঁদার টাকা জমা হয়েছে কিনা তা কিভাবে জানা যাবে?
উত্তর: চাঁদার টাকা জমা হলে চাঁদাদাতার রেজিস্টার্ড মোবাইল নম্বরে তাকে অবহিত করা হবে। নির্ধারিত তারিখের মধ্যে চাঁদা প্রদান করা না হলে বিলম্ব ফিসহ চাঁদা জমাদানের জন্য চাঁদাদাতার রেজিস্টার্ড মোবাইল নম্বরে ম্যাসেজ পাঠানো হবে।

প্রশ্ন: একই পরিবারের সবাই কি এই স্কিমে যুক্ত হতে পারবেন কিনা?
উত্তর: পরিবারের সবাই পেশা ও সামর্থ্য অনুযায়ী পেনশন স্কিমে যুক্ত হতে পারবেন।

প্রশ্ন:পপেনশন স্কিমে জমাকৃত টাকার গ্যারান্টার কে হবেন?
উত্তর: জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষ একটি সংবিধিবদ্ধ প্রতিষ্ঠান হওয়ায় সরকারই জমাকৃত টাকার গ্যারান্টার।

প্রশ্ন: নির্দিষ্ট সময় পর সহজে কিভাবে পেনশন পাব?
উত্তর: আপনার বয়স ৬০ বছর হলে জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষ আপনার দেয়া ব্যাংক একাউন্টে প্রতি মাসে স্বয়ংক্রিয়ভাবে (ইএফটি) আপনার প্রাপ্য টাকা পাঠিয়ে দিবে।

প্রশ্ন: আমার পেনশন ফান্ডে সরকার কি কোন কন্ট্রিভিউট করবে?
উত্তর:চারটি স্কিমের মধ্যে কেবলমাত্র “সমতা” স্কিমে চাঁদাদাতার প্রদত্ত সমপরিমাণ টাকা সরকার প্রদান করবে।

প্রশ্ন: জীবন বীমা কর্পোরেশনে যদি কারো পেনশন স্কিম থাকে তাহলে সে কি জাতীয় পেনশন স্কিমে যুক্ত হতে পারবে?
উত্তর: যুক্ত হতে পারবে।

প্রশ্ন: বিভিন্ন স্কিমে প্রদত্ত চার্ট/টেবিলের মেয়াদ (১০/১৫/২০/২৫/৩০/৩৫/৪০/৪২) অনুযায়ীই কি বিনিয়োগ করতে হবে?
উত্তর: না, উক্ত চার্ট/টেবিলের তথ্য দিয়ে একটি ধারনা দেয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। বস্তুত আপনার জন্ম তারিখ অনুযায়ী আপনি জাতীয় পেনশন স্কিমে কতদিন চাঁদা দিবেন তা নির্ধারণ হবে। যদি আপনার বয়স এখন ৩২ বছর ৩ মাস হয়ে থাকে, আর আপনি যদি আজকে পেনশন স্কিমে রেজিস্ট্রেশন করেন তাহলে আপনাকে ২৭ বছর ৯ মাস চাঁদা দিতে হবে এবং আপনি আপনার জমাকৃত টাকা পরিমাণ ও সময় অনুযায়ী মুনাফা পাবেন।

প্রশ্ন: আমি কি চাইলে কয়েক কিস্তি টাকা দেওয়ার পর আমার স্কিম বাতিল করে আমার জমাকৃত টাকা ফেরত পাব?
উত্তর:না। একবার পেনশনার আইডি তৈরি হলে ৫৯ বছর পর্যন্ত জমাকৃত অর্থের অনুকূলে পেনশন পাওয়া যাবে।

প্রশ্ন: সরকারি চাকরিজীবীরা ৩২-৩৫ বছর চাকরি করেও পেনশন পাচ্ছেন না, অনেক চাকরিজীবী আছেন, যারা বছরের পর বছর পেনশনের জন্য জুতার তলা ছিঁড়ে ফেলছেন, কিন্তু পেনশন পাচ্ছেন না। আর সাধারণ মানুষ, তারা কি সত্যি ৬০ বছর বয়সে গিয়ে জীবনের এসব সঞ্চয় তুলতে পারবেন?
উত্তর: সরকারী কর্মচারীদের পেনশন পাওয়ার ক্ষেত্রে তাদের চাকুরী জীবনের বিভিন্ন অডিট আপত্তি, সরকারের সাথে দেনা-পাওনা এবং শৃংখলা সংক্রান্ত বিষয়সমূহ নিষ্পত্তি করতে হয়। সর্বজনীন পেনশন স্কিমে এ ধরনের কোন বিষয় নেই। ফলে, ৬০ বছর পূর্তিতে চাঁদা দাতাগণ মাসিক পেনশন প্রাপ্য হবেন।

প্রশ্ন: সর্বজনীন পেনশন আইনে সুদ সম্পর্কে কি বলা হয়েছে? নেতিবাচক প্রচারণা সম্পর্কে কি নির্দেশনা দেয়া হবে এবং পেনশন স্কিমের ফান্ড কোন খাতে বিনিয়োগ করা হবে?

উত্তর: সর্বজনীন পেনশন স্কিমে যে স্কিম গুলো আনা হয়েছে সে গুলো ইসলামিক প্রোডাক্ট না। পরবর্তীতে আরেকটা প্রোডাক্ট চালু করা হবে ইসলামী প্রোডাক্ট যেটা হবে শরীয়া ভিত্তিক। এ ক্ষেত্রে শরীয়া এক্সপার্ট লাগবে এবং এটা চালু হতে সময় লাগবে। সুদ শব্দটি কোথাও আইন বা বিধিতে বলা নাই। এখানে প্রত্যেক ক্ষেত্রেই মুনাফা শব্দটি ব্যবহার করা হয়েছে। পেনশন স্কিমের ফান্ড বিনিয়োগ করা হবে সরকারি বন্ডে। কারণ সরকারী বন্ড হলো নিরাপদ। যেখানে থেকে রেগুলার ক্যাশ ফ্লো পাওয়া যাবে। পরবর্তীতে দীর্ঘমেয়াদী ইনফ্রাস্ট্রাকচারে বিনিয়োগ করা হবে। বেশির ভাগ উন্নত দেশে বন্ডে বিনিয়োগ হয়েছে। পদ্মা ব্রীজের মতো এ রকম বড় স্ট্রাকচারে বিনিয়োগ করা হবে। ব্যক্তি মালিকানাধীন কোন প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করা হবে না।

প্রশ্ন: কোন ব্যক্তি ১৮ বছর বয়সে চাঁদা প্রদান শুরু করার পর সরকারি চাকরি পেয়ে গেলে কি হবে?

উত্তর:সরকারী চাকরিজীবীদের সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আওতায় আনা হলে বিষয়টি সহজ হয়ে যাবে। আপাতত এমন পরিকল্পনা নেই। তবে ধরে নেয়া যাক, ২০৩০ সাল থেকে পূর্ব ঘোষণা দিয়ে সরকারি চাকরিজীবীদের সর্বজনীন পেনশন স্কিমে অন্তর্ভুক্ত করা হলো। তখন বিধি অনুযায়ী সহজেই একজন চাঁদাদাতা স্কিম পরিবর্তন করতে পারবে। যার বয়স ১৮ বছর, তার যদি পরে সরকারি চাকরি হয় – সেক্ষেত্রে ১০ বছর না হলে সে টাকা উঠিয়ে নেয়ার সুযোগ আছে। আর যদি সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য পেনশন স্কিম চালু হয়ে যায়, তিনি বর্তমান স্কিম থেকে উক্ত স্কিমে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে। এখন যারা সরকারী চাকরিতে আছে তাদের জন্য এটি প্রযোজ্য হবে না।

প্রশ্ন: প্রবাসী আয় অধ্যুষিত এলাকায় হটলাইন নম্বর চালু করা হবে কি না?
উত্তর: সকল জেলা প্রশাসক কার্যালয় এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসার কার্যালয়ে হট লাইন এবং হেল্প ডেস্ক চালু করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

প্রশ্ন: সমতা স্কিমের প্রত্যয়ন কে দিবে?
উত্তর: সমতা স্কিমে প্রত্যয়ন প্রয়োজন নেই। এটা পেনশনার নিজে ঘোষণা করবেন, তার মাসিক আয় ৫০০০/- টাকার নিচে হতে হবে।

প্রশ্ন: জীবন বীমা পেনশন স্কিমের সঙ্গে কিভাবে এই পেনশন স্কিম মার্জ হবে?

উত্তর:জীবন বীমার পেনশন স্কিমে অন্তর্ভুক্ত কোনো ব্যক্তি একই সাথে সর্বজনীন পেনশন স্কিমেও চাঁদা প্রদান করতে পারবেন। তবে দুটি স্কিমের টাকা যুক্ত বা মার্জ হবে না।

প্রশ্ন: প্রগতি স্কিমে বড় ইন্সটলমেন্ট দিয়ে শুরু করে সুরক্ষা স্কিমে ছোট ইন্সটলমেন্ট এ গেলে কিভাবে পেনশন প্রাপ্ত হবে।

উত্তর: বড় স্কিম থেকে ছোট স্কিমে বা ছোট স্কিম থেকে বড় স্কিমে যাওয়া যাবে। বর্তমানে প্রত্যেক স্কিমের জন্য ৮% হারে মুনাফা ধরা হয়েছে। ফলে বছরের যে কোনো সময়ে স্কিম বা প্যাকেজ পরিবর্তন করলেও মুনাফার হার একই হবে।

প্রশ্ন: ৭৬ বছরে যদি কেউ মারা যায় তাহলে তার নমিনি পাবেন কিনা?
উত্তর: পেনশনারের বয়স ৭৫ বছরের বেশি হয়ে গেলে নমিনির নাম কর্তন করে দেয়া হবে। নমিনি আর পেনশন প্রাপ্য হবেন না।

প্রশ্ন: ৫০ বছরের উপরে কেউ পেনশন স্কিমে যুক্ত হতে পারবেন কিনা?
উত্তর:পেনশন স্কিমে যুক্ত হওয়ার ক্ষেত্রে বয়সের কোনো উর্ধ্ব সীমা নেই। ৬০ বছর বয়সেও কেউ অন্তর্ভুক্ত হতে পারবেন। সেক্ষেত্রে ৭০ বছর হওয়ার পূর্বে তিনি যদি মারা যান, তাহলে তার নমিনি মুনাফাসহ জমাকৃত অর্থ ফেরত পাবেন।

প্রশ্ন: সাজা প্রাপ্ত আসামী পেনশন স্কিমে অংশগ্রহণ করতে পারবে কিনা? কিভাবে চাঁদা প্রদান করবেন?
উত্তর: সাজাপ্রাপ্ত আসামী সর্বজনীন পেনশন স্কিমে যুক্ত হওয়ার বিষয়টি প্রচলিত আইন ও বিধি অনুযায়ী পেনশন কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত প্রদান করবেন।

প্রশ্ন: সর্বজনীন পেনশন স্কিমে প্রদত্ত চাঁদার কর রেয়াত পাওয়া যাবে কি না?
উত্তর: হ্যাঁ, সর্বজনীন পেনশন স্কিমে প্রদত্ত চাঁদার কর রেয়াত পাওয়া যাবে।

প্রশ্ন: মাসিক পেনশন বাবদ প্রাপ্ত অর্থ আয়কর মুক্ত কি না?
উত্তর:হ্যাঁ, মাসিক পেনশন বাবদ প্রাপ্ত অর্থ আয়কর মুক্ত।

প্রশ্ন: সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির সুবিধা প্রাপ্তরা পেনশন স্কিমে অংশগ্রহণ করতে পারবেন কিনা? তাদের সুবিধা সমর্পণের কথা বলা হয়েছে। কিভাবে সমর্পণ করবেন?

উত্তর: না। সর্বজনীন পেনশন স্কিমে অংশগ্রহণ করতে হলে তাদেরকে সেই সুবিধা সমর্পণ করতে হবে। যেহেতু একই এনআইডি নম্বর দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করা হয় সেক্ষেত্রে তিনি সেই সুবিধা সমর্পন না করলে পেনশন স্কিমে আসতে পারবেন না।

প্রশ্ন: ৫০ বছরের উর্ধ্বে ব্যক্তিগণ বিশেষ বিবেচনায় পেনশন স্কিমে অংশগ্রহণ করতে পারবেন মর্মে বলা হয়েছে। বিশেষ বিবেচনা বলতে কি বুঝায়?
উত্তর: ৫০ বছরের উর্ধ্বে বিশেষ বিবেচনায় অর্থ কমপক্ষে ১০ বছর নিরবচ্ছিন্নভাবে তাঁকে চাঁদা প্রদান করতে হবে।

প্রশ্ন: চাঁদাদাতা কমপক্ষে ২০ বছর চাঁদা প্রদানের পূর্বে যদি মারা যান তাহলে তার নমিনি কিভাবে পেনশন পাবেন?

উত্তর:পেনশনার ২৫ বছর বয়সে চাঁদা প্রদান শুরু করে ৪৫ বছর বয়সে মারা গেলে তিনি মোট ২০ বছর চাঁদা প্রদান করলেন। সেক্ষেত্রে তার নমিনি উক্ত পেনশনারের বয়স ৬০-৭৫ বছর হওয়া পর্যন্ত পেনশন পাবেন। এক্ষেত্রে নমিনি নিজে যদি পেনশন স্কিমে অন্তর্ভূক্ত থাকেন তাতেও অসুবিধা হবে না। তিনি দুটি পেনশনই পাবেন। তবে এককালীন টাকা নমিনি পাবেন না।

প্রশ্ন: জেলা পর্যায়ে জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষের কোনো অফিস আছে কি না?

উত্তর: কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনে সরকারি গেজেট প্রজ্ঞাপন দ্বারা তফসিলি ব্যাংক, পোস্ট অফিস কিংবা অন্য কোনো অফিসকে স্কিমের সম্মুখ অফিস ঘোষণা করবে। আপাতত জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে তথ্য সেবা প্রদান এবং সোনালী ব্যাংকের প্রতিটি শাখায় নিবন্ধন ও চাঁদা জমা দেয়ার কাজে সহযোগিতা করবে।

প্রশ্ন: চাঁদাদাতার চাঁদার টাকা কিভাবে হিসাব করা হবে?
উত্তর: স্কিমের আওতাভুক্ত প্রত্যেক চাঁদাদাতার নামে একটি পৃথক পেনশন হিসাব থাকবে। যা তার কর্পাস হিসাব হবে এবং উক্ত কর্পাস হিসাবে চাঁদাদাতা কর্তৃক জমাকৃত চাঁদার অঙ্ক হিসাবায়ন করা হবে।

Conclusion

The Public Pension Scheme has added a new level of pension to the private sector. In the days ahead, pension benefits will still be available to those who have retired from private employment. Employees of private institutions, private institutions, self-employed and low-income citizens and expatriate Bangladeshis can participate.

I hope you are enjoying this article. Thanks for visiting this website.